4 বার প্রদর্শিত
"ওয়েব ডিজাইন" বিভাগে করেছেন

আমি ওয়েব ডিজাইন এর কাজ শিখে ফেলেছি বুঝবো কি করে। ওয়েবসাইটের কাজ করে কি আয় করা যায় ?

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন


ওয়েব ডিজাইনার হতে হলে কি কম্পিউটার সায়েন্স থেকে পাস হতে হবে? আমাদের সমাজের মধ্যে অনেক ভুল ধারণার মধ্যে এটিও একটি ভুল ধারণা। প্রকৃতপক্ষে বাহ্যিকভাবে দেখলে কম্পিউটার সায়েন্স থেকে পাস করা ছাত্রদেরই বেশি সফল হওয়ার কথা ছিল; কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন। বেশিরভাগ ওয়েডেভেলপমেন্ট সম্পর্কিত অফিসগুলোতে গেলেই যে তথ্য পাওয়া যায়, সেখানে দেখা যায় ৯০ ভাগ ওয়েবডেভেলপারের এডুকেশন ব্যাকগ্রাউন্ড ভিন্ন। কিছুদিন আগে সিভিনটেক থেকে একটা অফিসে এখান থেকে কোর্স সম্পন্ন করা আটজনকে চাকরি প্রদান করি। সেই আটজনের মধ্যে মাত্র একজন ছিল কম্পিউটার সায়েন্সের ছাত্র। একজন ইসলামিক স্টাডিসের, একজন তিতুমীর অন্যজন তেজগাঁও কলেজের ছাত্র। এ চিত্রটি মোটেই ব্যতিক্রম কিছু নয়, সব জায়গাতেই দেখা যাচ্ছে একই ঘটনা ঘটছে। আশা করি ওপরের ঘটনাটি দিয়ে বোঝাতে পেরেছি, ওয়েব ডিজাইনার হতে হলে কম্পিউটার সায়েন্স ব্যাকগ্রাউন্ড থাকার প্রয়োজন নেই। এখন আসল কথায় আসি ওয়েব ডিজাইন শিখতে হলে মূলত যা যা লাগবে-

১। এইচটিএমএল : এইচটিএমএল বা হাইপা টেক্সট মার্কআপ ল্যাঙ্গুয়েজ জানতে হবে। এটার কাজ মূলত কিছু ট্যাগ ব্যবহার করে ওয়েব পেজ গঠন করা। এগুলো মানুষ পড়তে পারে। প্রোগ্রামিং ভাষা এর মতো হাবিজাবি ‘হযবরল’ ভাষা না। এগুলোতে কিছু পরিচিত শব্দ ব্যবহার করা হয়। এইচটিএমএলকে ওয়েব পেজের কংকাল বলা হয়। এটি ওয়েব পেজের গঠন তৈরি করে।

২। সিএসএস : সিএসএস বা কেসক্যাডিং স্টাইল শিট জানতে হবে। এটি দিয়ে মূলত ওয়েব পেজগুলো ডিজাইন করা হয়। শুধু এইচটিএমএল দিয়ে ওয়েবপেজ বানালে তা শুধু কিছু লেখা মাত্র দেখা যাবে। কিন্তু সেই ওয়েব পেজকে সুন্দর রূপ দিতে হলে আপনার দরকার হবে সিএসএস। এইচটিএমএল হচ্ছে ওয়েব পেজের কংকাল আর সিএসএস হচ্ছে তার ওপরে মাংস, চামড়া ইত্যাদি। বুঝতেই পারছেন, সিএসএস ছাড়া এইচটিএমএল একটি কংকাল এর মতোই দেখাবে। সিএসএস এইচটিএমএল এর গঠনে রূপ দেয়।

৩। জাভাস্ক্রিপ্ট অথবা জেকুয়েরি : এই দুটোকে মূলত প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজের কিছুটা কাছাকাছি ধরা যায়। মূলত দুটি জিনিসের কাজ একই তবে জেকুয়েরি হচ্ছে জাভাস্ক্রিপ্টেরই একটা রূপ যা সাইটে জাভাস্ক্রিপ্ট ব্যবহারকে অনেকটাই সহজ করে। আর এগুলোর কাজ হচ্ছে সাইটটা ইন্টারেক্টিভ করা। অর্থাৎ ভিজিটর একটা বাটনে ক্লিক করলে মেনু ওপেন হবে। অথবা একটা ফর্ম সাবমিট করলে কনফার্মেশন মেসেজ দেখাবে ইত্যাদি।

৪। ফটোশপ : ওয়েব ডিজাইনের জন্য ফটোশপ এ জ্ঞান থাকা জরুরি। ছোটখাটো কাজের জন্য আপনাকে ফটোশপ জানতে হবে। তবে খুব ভালো জানা লাগবে এমন কোনো কথা নয়।

৫। আপডেট : এইচটিএমএল ৫ ও সিএসএস ৩ জানতে হবে। এগুলো মূলত যথাক্রমে এইচটিএমএল ও সিএসএস এর নতুন ভার্সন। এগুলো শিখতে হলে অবশ্যই প্রথমে এইচটিএমএল ও সিএসএস সম্বন্ধে জানতে হবে। এছাড়া সিএসএস ফ্রেমওয়ার্ক, রেস্পন্সিভ ডিজাইন ইত্যাদি শিখতে হবে।

কাজ কোথায় পাবেন?

ওয়েব ডিজাইনের কাজ আপনি দু’ভাবে পেতে পারেন। প্রথমটা হল দেশী কাজ আর অপরটি হল বিদেশী কাজ। দেশী কাজগুলো যদি আপনার পরিচিত কেউ থাকে বা কেউ তার কোম্পানির ওয়েবসাইট ডিজাইন করার জন্য আপনাকে কাজটি দিয়ে দিল এভাবে পেতে পারেন। অথবা কিছু লোকাল মার্কেটিং করে কাজে পেতে পারেন। আর বাইরের কাজগুলো পাওয়ার জন্য অনলাইন এ অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে প্রতিদিন হাজার হাজার কাজ জমা হচ্ছে। যেমন : ফ্রিল্যান্সার. কম, আপওয়ার্ক, ফাইভার ইত্যাদি। সেখানে আপনি বিড করে কাজ নিতে পারেন। কিন্তু এর জন্য আপনাকে ভালোমানের ওয়েবসাইট ডিজাইনার হতে হবে।

আয় কেমন হতে পারে?

একজন ওয়েব ডিজাইনার ওয়েবসাইট লে-আউট তৈরি, থিম তৈরি, এবং কোডিং করে থাকেন। এসইও বিষয়ক প্রাথমিক জ্ঞানগুলোও থাকা প্রয়োজন একজন ওয়েব ডিজাইনারের। কারণ ওয়েবসাইটকে এসইও ফ্রেন্ডলি করে ডিজাইন করা একজন ওয়েব ডিজাইনের দায়িত্ব। এসব বিষয়ে দক্ষ একজন ওয়েব ডিজাইনারে বেতন সারা বিশ্বের যেকোনো জায়গাতে কিংবা মার্কেট প্লেসগুলোতে ঘণ্টাপ্রতি ২০ ডলার থেকে ৫০ ডলার হয়ে থাকে, যেখানে একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনারের বেতন হয়ে থাকে ১০-২০ ডলার/প্রতিঘণ্টা। এ রেট দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতার ওপর ভিত্তি করে আরও বেশি হয়ে থাকে। যেমন : একজন ট্যালেন্ট এবং অনেক পরিশ্রমী ওয়েব ডেভেলপারের বেতন বাৎসরিক ১০ হাজার ডলার হওয়াটাও অতি স্বাভাবিক ঘটনা। আপনি যত বেশি গুণগতমান বজায় রেখে কাজ করতে পারবেন তত বেশি আয় করতে পারবেন।

কতদিন লাগবে

ওয়েব ডিজাইনার হতে সময়টা নির্ভর করে ৩টি বিষয়ের ওপর। ১) নিজের পরিশ্রমের পরিমাণ। ২) সঠিক গাইডলাইন। ৩) প্রশিক্ষণের মাধ্যম।

যতবেশি পরিশ্রম করবেন তত দ্রুত শিখতে পারবেন ওয়েব ডিজাইনিং সম্পর্কিত কাজ। প্রতিদিন কমপক্ষে ৫-৭ ঘণ্টা এ কাজে দেয়ার জন্য মন-মানসিকতা না থাকলে এ সেক্টরে ক্যারিয়ার গড়ার আশাটা ছেড়ে দেয়া উচিত। যদি আরও বেশি দিতে পারেন, তাহলে অবশ্যই অন্যদেও চেয়ে দ্রুত শিখতে পারবেন। তবে এটা বলে নেয়া উচিত, ওয়েব ডিজাইন কিংবা ওয়েব ডেভেলপিং শেখার শেষ বলতে কিছু নেই। এ সেক্টরে ক্যারিয়ার গড়লে সারাজীবন ধরেই শিখতে হবে। তবে কাজ শুরুর জন্য যেটুকু শেখা দরকার সেটি আশা করা যায়, ৪-৬ মাসের মধ্যেই শেখা সম্ভব। তবে এক্ষেত্রে সময়টা বেড়ে যেতে পারে শিখছেন কীভাবে, সেটার ওপর। যদি এমন হয় আপনি অনলাইন হতে নিজে নিজে শিখতে চাচ্ছেন, সেক্ষেত্রে হয়তো সময়টা অনেক বেড়ে যাবে। কারও নিজের তত্ত্বাবধানে শেখা উচিত। অনেকেই রয়েছে, যারা নিজেরা কাজ করেন না, শুধু প্রশিক্ষণ দেন, তাদের কাছেও সঠিক গাইডলাইন না পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। শেখার জন্য এমন কাউকে বেছে নিন যে নিজেই এ ধরনের প্রচুর কাজ করার বাস্তব অভিজ্ঞতা রয়েছে। কোনো ট্রেনিং সেন্টারে গিয়ে শিখতে গেলেও তাদের প্রশিক্ষকদের মধ্যে এ গুণটি রয়েছে কিনা সেটি জেনে নিন। সঠিক ব্যক্তির কাছ থেকে সঠিক গাইডলাইন পেয়ে এবং নিজের পরিশ্রম করলে অবশ্যই একজন ভালোমানের ওয়েব ডেভেলপার হতে পারবেন। তবে এ ৩টি বিষয় থাকার পরও যারা ব্যর্থ হয়েছেন তাদের ব্যর্থতার কারণ খুঁজতে গিয়ে আরও ৪টি বিষয় খুঁজে পেয়েছি।

সঠিকভাবে অনুসরণ করলে ওয়েব ডিজাইন হচ্ছে ১০০% নিশ্চিত ক্যারিয়ার, আয়ের পরিমাণটাও অনেক বেশি। তবে যেকোনো কিছুতে সফলতার জন্য পরিশ্রম এবং ধৈর্যের বিকল্প নেই।

ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে সবসময়ের জটিল কোডের সম্মুখীন হওয়ার জন্য মনপ্রাণ দিয়ে আশা করবেন। ওয়েব ডিজাইন করতে গিয়ে যতবেশি কোডের জটিলতার সম্মুখীন হবেন, ততবেশি নিজের ভেতর কনফিডেন্ট তৈরি হবে।

একজন ওয়েব ডেভেলপারকে সারাজীবন ধরেই শিখতে হয়, সেটি আগেই বলেছিলাম। আপনি কারও কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে একটা পর্যায় পর্যন্ত যেতে পারেন। কিন্তু বাকি পথটা একা একাই হাঁটতে হবে। আর সেজন্য প্রচুর পরিমাণ গুগল থেকে সার্চ করে নিজে নিজে শেখার অভ্যাসটা শুরু থেকেই করে নিতে হবে

আপনার বিভিন্ন সমস্যার সমাধান বা অজানা উত্তরের জন্য বিনামূল্যে আমাদের প্রশ্ন করতে পারবেন। প্রশ্ন করতে দয়া করে প্রবেশ, কিংবা নিবন্ধন করুন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

9k টি প্রশ্ন

7.1k টি উত্তর

248 টি মন্তব্য

804 জন সদস্য

প্রশ্ন করুন
ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ সুস্বাগতম, এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন, বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।

বিভাগসমূহ

ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, কোনভাবেই ক্যোয়ারী অ্যানসারস দায়বদ্ধ নয়।
...