26 বার ভিউ
"ইসলাম ধর্ম" বিভাগে করেছেন

সাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মনিরপেক্ষতা বলতে কী বোঝানো  হয় ?

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন

এ প্রশ্নটি মূলত একাডেমিক প্রশ্ন। সাম্প্রদায়িকতা বলতে সহজ কথায় বোঝায় সুনির্দিষ্ট কোনো সম্প্রদায়ের জন্য গোড়ামি এবং সীমা লঙ্ঘন করা। এটাকেই মূলত সাম্পদায়িকতা বলে এবং তা প্রযোজ্য হয় একটা সুনির্দিষ্ট সম্প্রদায়ের ক্ষেত্রে। সেটা গোষ্ঠিভিত্তিকও হতে পারে, আবার অঞ্চলভিত্তিকও হতে পারে। আর সাম্প্রদায়িকতার ক্ষেত্রে উগ্রতা ও গোড়ামি থাকবেই। যেহেতু সেখানে বিদ্বেষ থাকে, যেমন- আমার সম্প্রদায়ের লোকেরা করেছে, তাই এটা হালাল। অন্যদের বিপক্ষে আমি যাবই। এই যে গোড়ামি এটাকেই সাম্প্রদায়িকতা বলা হয়ে থাকে।এরপর আসে ধর্মনিরপেক্ষতার কথা। ধর্মনিরপেক্ষতার সঠিক ব্যাখ্যা হচ্ছে ইহজাগতিকতা এবং ধর্মনিরপেক্ষতার কনসেপ্টটা মূলত ইহজাগতিকতাকেই বোঝায়। শুধু বস্তুবাদী ধ্যানধারণা নিয়েই ধর্মনিরপেক্ষতা এবং সেখানে পরকালে বিশ্বাসের কোনো বিষয় নেই। কিন্তু পরবর্তী সময়ে এর বহু ডেফিনেশন বের হয়েছে। একেকজন একেক সময়ে একেক প্রেক্ষাপটে একেক পরিস্থিতিতে এর ব্যাখ্যা দিয়ে থাকে। তবে আমি যে ব্যাখ্যাটি উল্লেখ করলাম সেটা সিভিলাইজেবল ব্যাখ্যা। এটা অক্সফোর্ডসহ বিভিন্ন ডিকশনারির মধ্যে উল্লেখ করা হয়েছে। ধর্মনিরপেক্ষতাকে যদি একটা মতবাদ হিসেবে বা দৃষ্টিভঙ্গি হিসেবে গ্রহণ করা হয়, তাহলে দেখা যায় যে, এতে পারলৌকিক জীবনের যে বিষয় বা জান্নাত-জাহান্নামের বিষয়টি সেগুলোকে একেবারেই ইগনোর করা হয়েছে। তাই এর সাথে ঈমান রাখার কোনো বিষয়ের সম্পর্ক থাকে না।আবার ধর্মনিরপেক্ষতা বলতে ব্যক্তিগত একটি ব্যাখ্যা দেন যে, যার যার ধর্ম সে সেটা পালন করবে। এটা তো ইসলামসম্মত বিষয়। তবে ধর্মনিরপেক্ষতার এই সংজ্ঞা কোনো যুগে কোনো স্কলার দিয়েছেন বলে আমার জানা নেই। এটা আমরা নিজেরাই কেউ কেউ তৈরি করেছি। যদি ধর্মনিরপেক্ষতা বলতে কেউ এই কনসেপ্ট বোঝায় যে, প্রত্যেকে যার যার নিজস্ব ধর্ম পালন করবে যখন কোনো ভূখণ্ডে একাধিক ধর্মের অনুসারিরা বসবাস করবে। তাহলে এটা একেবারেই একসেপটেবল একটি বক্তব্য। এখানে ধর্মনিরপেক্ষতা বলতে এটা কোনো গর্হিত বক্তব্য নয়।মদিনার সনদেই আমরা এটা দেখেছি, রাসুলের সময়েও আমরা দেখেছি যার যার ধর্ম সে সে পালন করেছে। তবে পৃথিবীর ইতিহাস সাক্ষী যেখানে ধর্মনিরপেক্ষতা যেখানেই প্রতিষ্ঠা হয়েছে তার কোথাওই এই ধরনের কোনো অবস্থান আমরা দেখিনি, বরং ধর্মনিরপেক্ষতা সবচেয়ে প্রথম অবস্থান নিয়েছে ইসলামের বিরুদ্ধে, ঈমানের বিরুদ্ধে।সর্বপ্রথম কামাল আতাতুর্ক যখন তুরস্কে এই বিষয়গুলো নিয়ে বক্তব্য দেন এবং সেখানে ইসলামকে কামাল আতাতুর্কের মাধ্যমে সম্পূর্ণরুপে সমূলে ধ্বংস করে দেওয়ার চেষ্টা চালানো হয়েছে এবং করা হয়েছে।

আপনার বিভিন্ন সমস্যার সমাধান বা অজানা উত্তরের জন্য বিনামূল্যে আমাদের প্রশ্ন করতে পারবেন। প্রশ্ন করতে দয়া করে প্রবেশ, কিংবা নিবন্ধন করুন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

9.6k টি প্রশ্ন

7.5k টি উত্তর

250 টি মন্তব্য

1.2k জন সদস্য

প্রশ্ন করুন
ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ সুস্বাগতম, এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন, বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।

বিভাগসমূহ

ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, কোনভাবেই ক্যোয়ারী অ্যানসারস দায়বদ্ধ নয়।
...