81 বার প্রদর্শিত
"ইসলাম ধর্ম" বিভাগে করেছেন
আমার বাবা-মা সাত দিনে আমার আকিকা করেননি। আমার বয়স এখন ১৬ বছর। তাঁরা এখন আমার আকিকা করতে চান। এতে কি আমার আকিকা হবে? আকিকা যদি না হয়, তাহলে বিকল্প পদ্ধতি কী? ইসলামিক ভাবে জানতে চাই ?


3 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন

 সপ্তম দিনে আকিকা করা হয়নি। এখন আকিকা করার দরকার আছে কি না—এ মাসয়ালার মধ্যে আলেমদের দ্বিমত আছে। কিন্তু এখন আর আকিকা করার দরকার নেই, যেহেতু আকিকার সময় পার হয়ে গিয়েছে।


তারপরও যদি আপনি মনে করেন, আল্লাহর জন্য জবাই করবেন, তাহলে জবাই করে আপনি বিতরণ করে দিতে পারেন। সেটা জায়েজ রয়েছে। তবে আকিকার সময় যেহেতু শেষ হয়ে গিয়েছে, আপনার বয়স ১৬ বছর, তাই এখন আর আকিকা করার দরকার নেই। আকিকার বিধান এখন প্রযোজ্য হবে না।


তবে সাদকা করতে পারেন। সওয়াব পাবেন, কোনো সন্দেহ নেই।

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন

 সপ্তম দিনে আকিকা করা হয়নি। এখন আকিকা করার দরকার আছে কি না—এ মাসয়ালার মধ্যে আলেমদের দ্বিমত আছে। কিন্তু এখন আর আকিকা করার দরকার নেই, যেহেতু আকিকার সময় পার হয়ে গিয়েছে।

তারপরও যদি আপনি মনে করেন, আল্লাহর জন্য জবাই করবেন, তাহলে জবাই করে আপনি বিতরণ করে দিতে পারেন। সেটা জায়েজ রয়েছে। তবে আকিকার সময় যেহেতু শেষ হয়ে গিয়েছে, আপনার বয়স ১৬ বছর, তাই এখন আর আকিকা করার দরকার নেই।

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন
সম্পাদিত করেছেন

        একজন মানুষের জন্ম থেকে শুরু করে মৃত্যু পর্যন্ত জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইসলাম সুন্দর সুন্দর বিধান প্রদান করেছে। নবজাতক শিশু জন্ম গ্রহণ করার পর সন্তানের পিতা-মাতা বা তার অভিবাবকের উপর আকীকার বিধান ইসলামের সৌন্দর্যময় বিধান সমূহের মধ্য হতে অন্যতম একটি বিধান। আকীকার অর্থঃ تعريف العقيقة ইসলামের পরিভাষায় সন্তান জন্ম গ্রহণ করার পর আল্লাহর শুকরিয়া ও আনন্দের বহিঃপ্রকাশ হিসাবে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য যে পশু জবাই করা হয়, তাকে আকীকা বলা হয়।

আকীকার হুকুমঃ حكم العقيقة অধিকাংশ আলেমের মতে সন্তানের আকীকা করা সুন্নাতে মুআক্কাদাহ। রাসূসুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ

(من أحب منكم أن ينسك عن ولده فليفعل)

“যে ব্যক্তি তার সন্তানের আকীকা করতে চায়, সে যেন উহা পালন করে”। (আহমাদ ও আবু দাউদ)

রাসূলুল্লাহ (সাঃ) আরও বলেনঃ (كل غلام رهينة بعقيقته) অর্থ: প্রতিটি সন্তানই আকীকার বিনিময়ে আটক থাকে”। (আহমাদ, তিরমিজী ও অন্যান্য সুনান গ্রন্থ)

আকীকা করার সময়ঃ
وقت العقيقة  আকীকার জন্য উত্তম সময় হলো সন্তান ভুমিষ্ঠ হওয়ার সপ্তম দিবস। সপ্তম দিনে আকীকা দিতে না পারলে ১৪ম দিনে, তা করতে না পারলে ২১ম দিনে আকীকা প্রদান করবে। সপ্তম দিনে আকীকা করার সাথে সাথে সন্তানের সুন্দর নাম রাখা, মাথার চুল কামানো এবং চুল এর সমপরিমাণ ওজনের রৌপ্য ছাদকাহ করাও মুস্তাহাব। (তিরমিজী) বিনা কারণে আকীকা দেওয়াতে বিলম্ব করা সুন্নাতের বিরোধীতা করার অন্তর্ভুক্ত। দারিদ্র বা অন্য কোন কারণে যদি উল্লেখিত দিন গুলোতে আকীকা করতে অক্ষম হয়, তবে সন্তান ছোট থাকা অবস্থায় যখনই অভাব দূর হবে, তখনই আকীকা করতে হবে। অভাবের কারণে যদি কোন লোক তার শিশু ছেলে-মেয়েদের আকীকা করতে না পারে, তাহলে সন্তান বড় হওয়ার পর যদি তার আর্থিক অবস্থা ভাল হয়, তখন আকীকা করলেও সুন্নাত আদায় হয়ে যাবে এবং পিতা- মাতা ছাওয়াব পাবে, ইনশাআল্লাহ। এমন কি কারও পিতা-মাতা যদি আকীকা না করে, সে ব্যক্তি বড় হয়ে নিজের আকীকা নিজে করলেও সুন্নাত আদায় হয়ে যাবে। আনাছ (রাঃ) হতে বর্ণিত,

(أن النبي صلى الله عليه وسلم عق نفسه بعد البعثة)

“ নবী (সাঃ) নবুওয়াত পাওয়ার পর নিজের আকীকা নিজে করেছেন”। (বায়হাকী) এ হাদীস থেকে প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার পর নিজের আকীকা নিজে দেওয়া বৈধ হওয়ার উপর সুস্পষ্ট দলীল পাওয়া যায়।

আপনার বিভিন্ন সমস্যার সমাধান বা অজানা উত্তরের জন্য বিনামূল্যে আমাদের প্রশ্ন করতে পারবেন। প্রশ্ন করতে দয়া করে প্রবেশ, কিংবা নিবন্ধন করুন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

9k টি প্রশ্ন

7.1k টি উত্তর

248 টি মন্তব্য

804 জন সদস্য

প্রশ্ন করুন
ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ সুস্বাগতম, এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন, বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।

বিভাগসমূহ

ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, কোনভাবেই ক্যোয়ারী অ্যানসারস দায়বদ্ধ নয়।
...