43 বার ভিউ
"ইসলাম ধর্ম" বিভাগে করেছেন
তাবিজ করতে তো নিষেধ করা হয়েছে। কিন্তু দেখা যায় যে সমাজে চুল নিয়ে বা নখ নিয়ে মানুষকে নাকি নষ্ট করা (ক্ষতি করা) বা এ রকম একটা কথা প্রচলিত আছে। আবার মানুষের ওপর যখন জিন-পরীর আছর হয়, তখন তো অনেকে কবিরাজের কাছে যায়। এটা কি শুদ্ধ কি না বা যাওয়া যাবে কি না?


1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন

কবিরাজের কাছে যদি চিকিৎসার জন্য যান, তাহলে সেই চিকিৎসা জায়েজ। চিকিৎসা তো হারাম করা হয়নি। কিন্তু যদি কবিরাজের কাছে যান তাবিজ নেওয়ার জন্য, তাহলে অবশ্যই নাজায়েজ, এতে কোনো সন্দেহ নেই।আর জাদুর ব্যাপারে, জিনের আছরের ব্যাপারে অথবা এ জাতীয় কোনো বিষয়ের ব্যাপারে কোরআনে কারিম এবং রাসূল (সা.)-এর হাদিসে কী নির্দেশনা রয়েছে, সেটা জেনে নিতে হবে। তার মাধ্যমে চিকিৎসা নেওয়াটাই হচ্ছে সুন্নাহ। সুতরাং আপনি যদি উদ্দেশ্য করেন যে তাবিজের মাধ্যমে চিকিৎসা নেবেন, তাহলে এ কাজটি আপনি ভুল করবেন। এটি শুদ্ধ নয়।আর চুল, নখ এগুলো নিয়ে ক্ষতির কাজে তো ইমানদার ব্যক্তি জড়াবে না। এগুলো যাঁরা তৈরি করে থাকেন, তাঁরা মূলত জাদুমন্ত্রের আশ্রয় নিয়ে থাকেন। কোরআনে কারিমের মধ্যে এগুলো নেই। এগুলো নিষিদ্ধ বিষয়, নিষিদ্ধ কাজ। কোরআনে কারিমের আয়াত ছাড়া কোনোভাবেই কাউকে ঝাড়-ফুঁক করাও হারাম। আর তাবিজ দেওয়া তো কোরআনে কারিমের আয়াত দিয়েও হারাম করা হয়েছে, যেহেতু এর মধ্যে শিরকি কাজ রয়েছে।

আপনার বিভিন্ন সমস্যার সমাধান বা অজানা উত্তরের জন্য বিনামূল্যে আমাদের প্রশ্ন করতে পারবেন। প্রশ্ন করতে দয়া করে প্রবেশ, কিংবা নিবন্ধন করুন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

9.6k টি প্রশ্ন

7.5k টি উত্তর

250 টি মন্তব্য

1.2k জন সদস্য

প্রশ্ন করুন
ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ সুস্বাগতম, এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন, বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।

বিভাগসমূহ

ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, কোনভাবেই ক্যোয়ারী অ্যানসারস দায়বদ্ধ নয়।
...