10.8k বার ভিউ
"ইসলাম ধর্ম" বিভাগে করেছেন

কিছু লোককে দেখা যায়, তাঁরা আজান বা অন্য কোনো সময়ে মুহাম্মদ (সা.)-এর নাম শোনার সঙ্গে সঙ্গে দুই হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলি একসঙ্গে চুমু খেয়ে তার পর চোখে লাগান। এর পক্ষে নাকি একটি হাদিস আছে। আমি জানতে চাই, এটা কতটা সহিহ বা এর ফজিলত কী।

image

2 উত্তর

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

প্রথম কথা হচ্ছে, সহিহ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত হয়েছে যে রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘যার কাছে আমার নাম উল্লেখ করা হলো, অথচ সে আমার ওপর দরুদ পড়ল না সে ব্যক্তি ক্ষতিগ্রস্ত।’ এখান থেকে বোঝা যাচ্ছে, রাসূল (সা.)-এর নাম যখন আসবে, তখন দরুদ পড়াটা হচ্ছে বিধান।

এখন দরুদ পড়ার বিধানকে, সুন্নাহকে বাদ দিয়ে এই সুন্নাহর জায়গায় আমাদের আবেগ কাজে লাগিয়ে শয়তান এমনভাবে বিদআত ঢুকিয়েছে যে, সেখানে আপনি ‘সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম’ আর বলেন না। আপনি আঙুল একসঙ্গে করে চোখে-মুখে লাগাচ্ছেন। 

বরং রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘মানুষের মধ্যে সবচেয়ে বড় বখিল বা কৃপণ ব্যক্তির পরিচয় করিয়ে দিচ্ছি, সে হলো ওই ব্যক্তি, যার সামনে আমার নাম উল্লেখ করা হয়েছে, অথচ সে দরুদ পড়ে নাই।’ তাহলে বোঝা গেল, যে লোক দরুদ না পড়ে এই কাজটি করছেন, সে মানুষের মধ্যে সবচেয়ে বখিল ব্যক্তি।

রাসূল (সা.)-এর নৈকট্য তো প্রশ্নই আসে না। কারণ, এটাই রাসূল (সা.)-এর নির্দেশনা। সুতরাং রাসূল (সা.)-এর নির্দেশনা লঙ্ঘন করে তিনি যে কাজটি করছেন, সেটা হচ্ছে সবচেয়ে বেশি কৃপণতার কাজ। রাসূল (সা.) বলেছেন, সে হচ্ছে সবচেয়ে বড় কৃপণ। সুতরাং এটা ফজিলতের কাজ নয়। 

এরপর যেটা বলছি সেটা হলো, এই মর্মে রাসূল (সা.)-এর কোনো মিথ্যা হাদিসও সাব্যস্ত হয়নি। সহিহ হাদিস তো দূরের কথা, কোনো মিথ্যা হাদিসও আসেনি। যে রেওয়াতটি উল্লেখ করা হয়ে থাকে, এটি আবু বকর (রা.) থেকে এসেছে বলা হয়ে থাকে। এটি একেবারেই জালিয়াতি বক্তব্য, মিথ্যা বক্তব্য।

যদি এ ধরনের কাজ করা হয়, এটা বলা হয়ে থাকে যে তাদের চোখের জ্যোতি বৃদ্ধি পায়। যদি চোখের জ্যোতি বৃদ্ধি পায়, তাহলে রাসূল (সা.)-এর নাম বললেই তো চোখের জ্যোতি বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু এটা আদৌ রাসূল (সা.)-এর হাদিসে সাব্যস্ত হয়নি; বরং এটি একটি মিথ্যা হাদিস। এই আমলটুকু রাসূল (সা.) করতে বলেন নাই। বরং রাসূল (সা.)-এর নাম যখন আসবে, তখন তাঁর নামের ওপর ‘সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম’ অথবা ‘আল্লাহুম্মা সাল্লিউ সাল্লিমা আলাইহি’ বলা হচ্ছে সুন্নাহ।

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন

মুহাম্মদুর রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) নাম শুনে বৃদ্ধা আংগুল বা শাহাদাত আংগুলিতে চুম্বন করাঃ


হাদীস নং-১


‘‘হযরত ওয়াহাব ইবনে মুনাব্বাহ (রা) বলেন, 


বনী ইসরাঈলের মধ্যে এক ব্যক্তি ছিল অত্যন্ত পাপী, যে ২০০ বছর পর্যন্ত আল্লাহর নাফরমানী করেছে। যখন সে মৃত্যুবরণ করে মানুষেরা তাকে এমন স্থানে নিক্ষেপ করল, যেখানে আবর্জনা ফেলা হতো। তখন হযরত মুসা (আ) এর প্রতি ওহী এলো যে, লোকটিকে ওখান থেকে তুলে যেন তার ভালভাবে জানাযার নামায পড়ে তাঁকে দাফন করা হয়। হযরত মুসা (আ) আরজ করলেন, হে আল্লাহ! বনী ইসরাঈল সাক্ষ্য দিচ্ছে যে, লোকটি ২০০ বছর পর্যন্ত তোমার নাফরমানী করেছিল। ইরশাদ হলো, হ্যাঁ, তবে তার একটি ভাল অভ্যাস ছিল। যখন সে তাওরাত শরীফ তেলাওয়াত করতো, যতবার আমার হাবীব হযরত মুহাম্মদ (সা) এর নাম মোবারক দেখত তখন সেটা ততবার চুম্বন করে চোখের উপর রাখত এবং তার প্রতি দুরূদ পাঠ করত। এজন্য আমি তাকে ক্ষমা করে দিয়েছি এবং সত্তর জন হুর স্ত্রী স্বরূপ তাকে দান করেছি।’’ 

*উক্ত হাদীসের ব্যাপারে কোনো মুহাদ্দিস মন্তব্য করেননি। তাদের নীরবতা পালন দ্বারা বুঝা গেল হাদিসটি গ্রহণ করেছেন বলে এই হাদিসের ব্যাপারে কোন মুহাদ্দিসের বিরোধীতা পাওয়া যায়নি।


Reference :


ক. ইমাম আবু নঈম : হুলিয়াতুল আউলিয়া : ৩/১৪২ পৃ.

খ. আল্লামা বুরহানুদ্দীন হালভী : সিরাতে হালবিয়্যাহ ১ম খন্ড পৃষ্ঠা-৮৩ 

গ. আল্লামা শফী উকাড়ভী : জিকরে জামীল : ৩৫৪ পৃষ্ঠা

ঘ. জালালুদ্দীন সুয়ূতি : খাসায়েসুল কোবরা :১/­৩০,হাদিস : ৬৮, মাকতুত-তাওফিকহিয়্যাহ, বয়রুত।

ঙ. আল্লামা আবদুর রহমান ছাফূরী : নুযহাতুল মাযালিস : ২/১৪২ পৃ.

চ. আল্লামা দিয়ার বকরী : আল খামীস ফি আহওয়ালে আনফাসে নাফীস : ১/২৮২ পৃ.


হাদীস নং ২


* এ ব্যাপারে হযরত আদম (আ) এর আমলঃ

বিখ্যাত মুফাস্সির আল্লামা ইসমাঈল হাক্কী (রহ) তাঁর উল্লেখযোগ্য তাফসীর তাফসীরে ‘রুহুল বায়ানে’ লিখেন,

-‘‘কাসাসুল আম্বিয়া কিতাবে বর্ণিত আছে যে, হযরত আদম (আ) জান্নাতে অবস্থানকালে মহানবি হযরত মুহাম্মদ (সা)‘র সাথে সাক্ষাতের জন্যে আগ্রহ প্রকাশ করেন। অত:পর আল্লাহ তা‘য়ালা তাঁর নিকট ওহী প্রেরণ করেন যে, হে আদম! তিনি তোমার পৃষ্ঠ হতে শেষ যামানায় প্রকাশ হবেন। তা শুনার পর তিনি জান্নাতে অবস্থানকালে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা জানালেন। বিনিময়ে আল্লাহ তায়ালা ওহী প্রেরণ করলেন, যে নূরে মুহাম্মদী (সা) তোমার ডান হাতের শাহাদাত আঙ্গুলীর মধ্যে স্থানান্তরিত করেছি, তখন সে অঙ্গ হতে তাসবীহ পাঠ আরম্ভ হলো। এজন্যই এই আঙ্গুলকে তাসবীহ পাঠকারী আঙ্গুল বলা হয়। যেমন ‘রওযাতুল ফায়েক’ কিতাবেও বর্ণিত আছে, অথবা আরেক বর্ণনায় রয়েছে, আল্লাহ তায়ালা আপন হাবীব (সা) এর সৌন্দর্য প্রকাশ করলেন দুই বৃদ্ধাঙ্গুলীর উপর যেভাবে আয়নাতে দেখা যায়। তখন আদম (আ) দুই বৃদ্ধাঙ্গুলে চুম্বুন করে স্বীয় চোখের উপর মালিশ করলেন। এটি দলীল হিসেবে প্রমাণিত হলো যে, তাঁর সন্তানাদীর জন্য। অতঃপর জিবরাঈল (আ) এই ঘটনা হুযুর (সা) কে জানালেন। হুযুর (সা) বললেন, যেই ব্যক্তি আযানের মধ্যে আমার নাম মোবারক শুনে দুই বৃদ্ধাঙ্গুলী চুম্বন করবে আর চোখে মালিশ করবে, সে কখনো অন্ধ হবে না।’’


Reference :


ক.আল্লামা ইসমাঈল হাক্কী : তাফসীরে রুহুল বয়ান : ৭/২২৯ : সূরা মায়েদা আয়াত : ৫৭ নং এর ব্যাখ্যা খ.আবদুর রহমান ছাফুরী, নুযাহাতুল মাযালিস,২/৭৪পৃ.


হাদীস নং-৩


* হযরত খিযির (আ) কর্তৃক রাসূল (সা) এর নাম শুনে চুমু খাওয়ার আমল বর্ণিতঃ


ইমাম আবু আব্বাস আহমদ বিন আবি বকর ইয়ামানী (রহ) তাঁর লিখিত উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ موجبات الرحمة و عزائم المغفرة এর মধ্যে হযরত খিযির (আ) থেকে বর্ণিত আছে, যে ব্যক্তি মুয়াজ্জিনের কণ্ঠে ‘আশহাদু আন্না মুহাম্মদার রাসূলূল্লাহ’ শোনে বলবে مرحبا بحبيبى و قرة عينى محمد بن عبد الله صلى الله عليه وسلم ) মারহাবা বি হাবিবি ওয়া কুররাতো আইনী মুহাম্মাদ ইবনে আব্দুল্লাহ (সা) অতঃপর স্বীয় বৃদ্ধাঙ্গুলীদ্বয় চুম্বন করে চোখে লাগাবে, তাহলে তার চোখে কখনও ব্যথা হবে না এবং সে কোন দিন অন্ধ হবে না।’’ 


Reference :


ক. আল্লামা ইমাম সাখাভী : মাকাসিদুল হাসানা : ১/৩৮৩ : হাদিস : ১০২১

খ. আল্লামা আযলূনী : কাশফুল খাফা : ২/২৭০ : হাদিস : ২২৯৬

গ. আল্লামা মোল্লা আলী ক্বারী : মওদ্বুআতুল কবীর : ১০৮ পৃ

ঘ. আল্লামা মুফতী আহমদ ইয়ার খাঁন নঈমী : জাআল হক : ২/২৪৬ পৃ


হাদীস নং-৪


*হযরত আবু বকর (রা) এর আমল এবং সনদ তাত্ত্বিক বিশ্লেষনঃ


হযরত আবু বকর (রা) হতে বর্ণিত, তিনি মুয়ায্যিনকে ‘আশহাদু আন্না মুহাম্মাদার’ রাসূলূল্লাহ বলতে শোনলেন, তখন তিনিও তা বললেন এবং বৃদ্ধাঙ্গুলীদ্বয়ে চুমু খেয়ে তা চোখে বুলিয়ে নিলেন। তা দেখে রাসূল (সা) ইরশাদ করেন : যে ব্যক্তি আমার বন্ধুর ন্যায় আমল করবে, তার জন্য আমার সুপারিশ বৈধ হয়ে গেল।’’ 

উক্ত হাদিসটি সম্পর্কে গ্রহণযোগ্য মুহাদ্দিসগণের মতামত আমি তুলে ধরব, যাঁরা হাদিসটি সম্পর্কে বিভিন্ন মন্তব্য করেছেন।


১. ইমাম সাখাভীর অভিমতঃ


আল্লামা ইমাম সাখাভী (রহ) হযরত আবু বকর (রা) এর বর্ণিত হাদিসটি সংকলন করে বলেন, لا يصح ‘হাদিসটি সহিহ নয়।’ 


হাদিসটি সহিহ নয় বললে, “হাসান” হাদিস বুঝায়। এমনকি মোল্লা আলী ক্বারী (রহ) বলেন, لا يصح لا ينافى الحسن-

-‘‘কোন মুহাদ্দিসের বক্তব্য হাদিসটি সহিহ নয়-তা দ্বারা হাদিসটি “হাসান” হওয়াতে কোন অসুবিধা বা নিষেধ করে না।’’ ইতিপূর্বে আমি ইমাম সাখাভীর বক্তব্যও পেশ করেছি।

বুঝা গেল, হাদিসটি কমপক্ষে “হাসান” হাদিস যা দলীল হিসেবে দাড় করানোর গ্রহণযোগ্যতা রাখে। 

(প্রমানিত হাদিস জাল বানানোর স্বরুপ উন্মোচন বই)


২. আল্লামা মোল্লা আলী ক্বারী (রহ) এর অভিমতঃ


আল্লামা মোল্লা আলী ক্বারী (রহ) তাঁর গ্রন্থে ইমাম সাখাভী (রহ.)‘র রায় পেশ করে সমাধানের কথা বলেন যে-

‘‘আমার কথা হলো হাদিসটির সনদ যেহেতু হযরত আবু বকর সিদ্দিক (রা) পর্যন্ত প্রসারিত (মারফূ হিসেবে প্রমাণিত), সেহেতু আমলের জন্য এতটুকুই যথেষ্ট। কেননা হুযুর (সা) ইরশাদ করেছেন, তোমরা আমার পর আমার সুন্নাত ও আমার খোলাফায়ে রাশেদীনের সুন্নাতকে আকড়ে ধরো।’’ 

দেখুন! আল্লামা মোল্লা আলী ক্বারী (রহ) বলেছেন যে, এতটুকুই যথেষ্ট যেহেতু হযরত আবু বকর (রা) আমলটি করেছেন এবং তিনি পর্যন্ত সনদটি প্রসারিত।


Reference :


খ. ইমাম আবদুর রহমান সাখাভী : মাকাসিদুল হাসানা : ৩৮৩ : হাদিস : ১০২১

গ. আল্লামা ইমাম আযলূনী : কাশফুল খাফা : ২/২৫৯ : হাদিস : ২২৯৬

ঘ. আল্লামা মোল্লা আলী ক্বারী : আসরারুল মারফূ : ৩১২ পৃষ্ঠা : হাদিস : ৪৫

আপনার বিভিন্ন সমস্যার সমাধান বা অজানা উত্তরের জন্য বিনামূল্যে আমাদের প্রশ্ন করতে পারবেন। প্রশ্ন করতে দয়া করে প্রবেশ, কিংবা নিবন্ধন করুন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

9.6k টি প্রশ্ন

7.5k টি উত্তর

250 টি মন্তব্য

1.2k জন সদস্য

প্রশ্ন করুন
ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ সুস্বাগতম, এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন, বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।

বিভাগসমূহ

ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, কোনভাবেই ক্যোয়ারী অ্যানসারস দায়বদ্ধ নয়।
...