160 বার ভিউ
"ইসলাম ধর্ম" বিভাগে করেছেন

মাঝে মাঝে বিভিন্ন কারণে আমাদের জামাতে সালাত আদায় করা সম্ভব হয় না। তাই নিজে নিজে সালাত করে নিতে হয়। আমার প্রশ্ন হলো, নিজে নিজে সালাত আদায়ের ক্ষেত্রে ফরজ সালাতের আগে একামত দেওয়া কি জরুরি?

2 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন

জরুরি বলতে ফরজ বা ওয়াজিব নয়। তবে সুন্নাহ। যদি কেউ একামত দিয়ে সালাত আদায় করেন তাহলে সুন্নাহ হচ্ছে একামত দিয়ে শুরু করা।

আর আপনি সালাতের যে নিয়মের কথা বলেছেন, সেটা শুদ্ধ নয়। খেয়াল রাখতে হবে সালাত আলাদায়ের কোনো ধরন নেই। কারণ আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা কোরআনের মধ্যে বলেছেন, ‘তোমরা রুকুকারীদের সাথে রুকু কর, তোমরা সালাত কায়েম কর।’

সালাতের সঙ্গে মূলত আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা যেসব শব্দ ব্যবহার করেছেন, প্রত্যেকটি শব্দের নির্দেশনা হলো এই, এর মাধ্যমে আমরা তালিম নিতে পারি বা এখান থেকে এটা বোঝা যায় যে, সালাত আদায়ের ক্ষেত্রে পদ্ধতি হচ্ছে জামাতের সঙ্গে আদায় করা। এর কোনো আলাদা ধরন নেই। আমরা কল্পিত একটা ধরন আবিষ্কার করেছি।

রাসুল (সা.) শুধু অনুমোদন দিয়েছেন, যারা আসাবুল আদার, তাঁদের জন্য। আসাবুল আদার হচ্ছে যাদের ওজর আছে শুধু ওই সব ব্যক্তির জন্য। যেমন—অসুস্থ ব্যক্তি, মুসাফির ব্যক্তি যারা সফরে আছেন অথবা ওই ব্যক্তি যার জামাতে অংশগ্রহণের কোনো ভয় রয়েছে, মসজিদে যাওয়ার মতো অবস্থা তাঁর নেই। যে ওজরগুলো রয়েছে সে ওজরগুলো ছাড়া অসুস্থ না হলে অথবা ভয়ের কোনো শঙ্কা না থাকলে তার উচিত হবে জামাতে অংশগ্রহণ করা। 

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন

জরুরি বলতে ফরজ বা ওয়াজিব নয়। তবে সুন্নাহ। যদি কেউ একামত দিয়ে সালাত আদায় করেন তাহলে সুন্নাহ হচ্ছে একামত দিয়ে শুরু করা।

আর আপনি সালাতের যে নিয়মের কথা বলেছেন, সেটা শুদ্ধ নয়। খেয়াল রাখতে হবে সালাত আলাদায়ের কোনো ধরন নেই। কারণ আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা কোরআনের মধ্যে বলেছেন, ‘তোমরা রুকুকারীদের সাথে রুকু কর, তোমরা সালাত কায়েম কর।’

সালাতের সঙ্গে মূলত আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা যেসব শব্দ ব্যবহার করেছেন, প্রত্যেকটি শব্দের নির্দেশনা হলো এই, এর মাধ্যমে আমরা তালিম নিতে পারি বা এখান থেকে এটা বোঝা যায় যে, সালাত আদায়ের ক্ষেত্রে পদ্ধতি হচ্ছে জামাতের সঙ্গে আদায় করা। এর কোনো আলাদা ধরন নেই। আমরা কল্পিত একটা ধরন আবিষ্কার করেছি।

রাসুল (সা.) শুধু অনুমোদন দিয়েছেন, যারা আসাবুল আদার, তাঁদের জন্য। আসাবুল আদার হচ্ছে যাদের ওজর আছে শুধু ওই সব ব্যক্তির জন্য। যেমন—অসুস্থ ব্যক্তি, মুসাফির ব্যক্তি যারা সফরে আছেন অথবা ওই ব্যক্তি যার জামাতে অংশগ্রহণের কোনো ভয় রয়েছে, মসজিদে যাওয়ার মতো অবস্থা তাঁর নেই। যে ওজরগুলো রয়েছে সে ওজরগুলো ছাড়া অসুস্থ না হলে অথবা ভয়ের কোনো শঙ্কা না থাকলে তার উচিত হবে জামাতে অংশগ্রহণ করা। 

আপনার বিভিন্ন সমস্যার সমাধান বা অজানা উত্তরের জন্য বিনামূল্যে আমাদের প্রশ্ন করতে পারবেন। প্রশ্ন করতে দয়া করে প্রবেশ, কিংবা নিবন্ধন করুন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

9.6k টি প্রশ্ন

7.5k টি উত্তর

250 টি মন্তব্য

1.1k জন সদস্য

প্রশ্ন করুন
ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ সুস্বাগতম, এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন, বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।

বিভাগসমূহ

ক্যোয়ারী অ্যানসারস এ প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, কোনভাবেই ক্যোয়ারী অ্যানসারস দায়বদ্ধ নয়।
...